মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ২০২২

মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ২০২২

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা। কেমন আছেন সবাই ।আশা করি ভালো আছেন, আমিও আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। আজকে আপনাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি টপিক নিয়ে আলোচনা করব । কিভাবে মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন বা সঠিক নিয়মে ইউটিউব চ্যানেল খোলার উপায় ২০২২। আমাদের অনেকেরই স্বপ্ন একজন ইউটিউবার হওয়ার এবং তার জন্য অবশ্যই আপনার একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকা প্রয়োজন। আজকে আপনাদের শেখাবো কিভাবে আপনার হাতে থাকা স্মার্ট ফোনের মাধ্যমে একটি নতুন ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা। মোবাইল এবং কম্পিউটার দুই ধরনের ডিভাইস এই পদ্ধতি এ কিভাবে কাজ করে থাকে। অর্থাৎ আর্টিকেলটি শুধুমাত্র মোবাইল ইউজারদের জন্য নয় আপনার কম্পিউটার এর মাধ্যমেও ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারবেন। তো চলুন শুরু করা যাক আমাদের আজকের পোস্ট।

কেন ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করবেন বা খুলবেন ?

উত্তর:-

কেন একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করবেন বা কেন একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন এটি একটি কমন প্রশ্ন। যেভাবে এটি একটি সহজ প্রশ্ন ঠিক অনুরূপভাবে এর উত্তরটা খুবই সহজ। ইউটিউব চ্যানেল মূলত দুইটি কারণে খোলা হয়। যথা ক্যারিয়ার এবং মার্কেটিং। বর্তমান বিশ্বে কোটি কোটি মানুষ রয়েছে যারা কিনা তাদের ক্যারিয়ার হিসেবে ইউটিউব বেছে নিয়েছেন । আমি এখানে কেরিয়ার বলতে উপার্জনের উৎস বোঝাচ্ছি। ইউটিউব থেকে আপনি প্রচুর পরিমানের অর্থ ইনকাম করতে পারবেন, তাও আবার সম্পূর্ণ ফ্রিতে।

এক্ষেত্রে আপনাকে একজন কনটেন্ট ক্রিয়েটর হতে হবে। আমি এখানে ভিডিও কনটেন্ট ক্রিকেটারদের কথা বলছি। ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম জানার আগে আপনার অবশ্যই বেছে নিতে হবে আপনি ঠিক কোন বিষয়ের উপর ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে চাচ্ছেন এবং ঠিক কি কি ধরনের ভিডিও আপলোড করতে চান। কিভাবে কি করতে হয়। আর তার পরিপূর্ণ গাইড লাইন ইউটিউব চ্যানেল খোলার পর দিব। তারপরেও আমি বলব অবশ্যই আপনার ইউটিউব চ্যানেল এর বেসিক বিষয়গুলো জানা উচিত। এ বিষয়ে আমি একটি ডেডিকেটেড পোস্ট লিখেছি আপনারা চাইলে চেক আউট করে আসতে পারেন নিচে লিঙ্ক দিয়ে দিলাম।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম এবং যেভাবে আপনার চ্যানেলের ভিডিও ভাইরাল করবেন ২০২২

ইউটিউব চ্যানেল মার্কেটিং কি এবং  কিভাবে করে

এরপর আছে ইউটিউব চ্যানেল মার্কেটিং । এই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ বর্তমান প্রায় সকলেই ইউটিউব চ্যানেল মার্কেটিং করছে । ইউটিউব চ্যানেল মার্কেটিং বলতে বোঝানো হয় একটি ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন অন করে অথবা তার কিছুদিন পর বিক্রি করা। একটি ইউটিউব চ্যানেল এ প্রায় 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং 1000 সাবস্ক্রাইবার হলে মনিটাইজেশন অন হয়। তারপর থেকে ইউটিউব চ্যানেল থেকে ইনকাম হওয়া শুরু করে এবং এই মনিটাইজেশন এর বিষয়টিও ওয়েবসাইট মনিটাইজেশন অর্থাৎ গুগল এডসেন্স দ্বারা পরিচালিত হয় এবং এর পদ্ধতিও প্রায় একই ধরনের। অর্থাৎ ওয়েবসাইটে অ্যাডসেন্স এর মত এখানেও একই ধরনের অ্যাড দেখানো হয়। তবে পার্থক্য হলো ওয়েবসাইটে অ্যাডসেন্স এর ক্ষেত্রে শুধুমাত্র ব্যানার এবং টেক্সট কন্টেন্ট অ্যাড দেখানো হয়। ইউটিউব চ্যানেল এর জন্য এই মনিটাইজেশন সিস্টেমের অ্যাড সম্পূর্ণ ভিন্ন অর্থাৎ শুধুমাত্র ভিডিও অ্যাড দেখানো হয়। অনুরূপভাবে ইউটিউব চ্যানেল এর ইনকাম ভিডিও এর ভিউ এবং ওয়াচ টাইম এর উপর নির্ভর করে। তো আশা করি বুঝতে পারছেন বিষয়গুলো। এখন মূল টপিকে আসা যাক।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হয় এবং ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য কি কি লাগে ।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য কি কি প্রয়োজন হয় । প্রথমত অবশ্যই আপনার একটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট প্রয়োজন। জিমেইল একাউন্ট অর্থাৎ গুগল একাউন্ট। গুগোল একাউন্ট ছাড়া কোনভাবেই ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা সম্ভব নয়। অর্থাৎ সর্বপ্রথম আপনাকে একটি গুগল অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে।যদি গুগল একাউন্ট তৈরি করতে না পারেন তাহলে আমার অন্য একটি আর্টিকেল দেখতে পারেন। আমি এই আর্টিকেলের ভিতরে ঐটি মেনশন করতে চাচ্ছি না। তাই আপনাদেরকে ডেডিকেটেড আর্টিকেলটির লিংক দিচ্ছি ওখান থেকে শিখে একটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিন। তারপর আপনার যদি জিমেইল অ্যাকাউন্ট তৈরি করা হয়ে থাকে, তারপর আমি পরবর্তী নির্দেশনা দিবো ।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হয়

নতুন একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলার জন্য , প্রথমে আপনি ইউটিউব এর অফিশিয়াল অ্যাপ অথবা ওয়েবসাইট  এ প্রবেশ করুন । ইউটিউব অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ( যদি আপনি কম্পিউটার ব্যবহারকারী হন) ।  আমার ব্যক্তিগত মতামত হল কম্পিউটার থেকে মোবাইল বা স্মার্ট ফোন দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা খুবই সহজ। যাই হোক ইউটিউব এর অফিশিয়াল এপে প্রবেশ করার পর ডান সাইডের থেকে আপনার জিমেইল দিয়ে লগইন করে নিবেন। তারপর নিচের স্ক্রীনশট এ দেখানো জায়গায় ক্লিক করুন। অর্থাৎ ইওর চ্যানেল ( Your Channel ) অপশনে ক্লিক করুন।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ২০২২
ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ২০২২

উপরোক্ত কাজটুকু হয়ে গেলে তারপর নিচে দেখানো স্ক্রীনশট এর মত একটি পেজ ওপেন হবে। সেখানে প্রথমে ডান দিকে যে ছোট ইমেজ আইকন দেখতে পাবেন। ওইখানে মাঝে ক্যামেরায় মতো থাকবে। ক্যামেরা আইকনে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনার চ্যানেলের লোগো সেট করতে পারবেন। কিভাবে লোগো সেট করবেন সেটি আমি পরে দেখাচ্ছি আগে আপনি নিচের ব্লার করা জায়গায় আপনার ইউটিউব চ্যানেলের নামটি লিখুন এবং অতঃপর ক্রিয়েট চ্যানেল এ ক্লিক করুন ।

ক্রিয়েট ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করবেন আপনার চ্যানেলের নাম সিলেট করার পর।
যেভাবে একটি নতুন ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হয়

আপনাকে অভিনন্দন কারণ এখন সম্পুর্ন ভাবে আপনি আপনার নিজের নামে একটি বা নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করেছেন এবং সাথে সাথে ইউটিউব চ্যানেলের লোগো পরিবর্তন শিখে নিয়েছেন । পরবর্তীতে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের লোগো পরিবর্তন করার প্রয়োজন হলে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে লোগো পরিবর্তন করতে পারবেন । একইভাবে চ্যানেলের নাম পরিবর্তন করাও আপনি শিখিয়ে গিয়েছেন । ঠিক অনুরূপভাবে চ্যানেলের নাম পরিবর্তন করতে হয়, শুধুমাত্র পরবর্তী সময়ে ক্রিকেট চ্যানেল এর পরিবর্তে সেভ অপশন এ ক্লিক করতে হবে। একটি সুখবর হচ্ছে বর্তমান ইউটিউব এর ভার্সনে আপডেট আসার কারণে ব্যানার এড করা লাগছে না। যার কারণে আরও সহজ হয়ে গেছে কষ্ট করে আর ব্যানার তৈরি করা প্রয়োজন নেই।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম এবং টিপস

তো বন্ধুরা আজকে আপনাদের শেখালাম কিভাবে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হয় অর্থাৎ ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম । যেহেতু ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম মেনে কাজ সমাপ্ত হয়েছে। তাই এখন পরবর্তী কাজ হল ভিডিও তৈরি করা, সেই ভিডিও এডিট করা এবং এসইও মাফিক ভিডিওটি আপলোড করা।এভাবে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল কে গ্রো করতে পারবেন । এর মাঝখানে দুইটি কাজ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রথমত ভিডিও ক্রিয়েট করা এবং ভিডিও এডিট করা বা থাম্বনেইল তৈরি করা। পরবর্তী আর্টিকেলে আমি এই বিষয় দুটিকে নিয়ে কভার করে একটি পোস্ট লিখবো এবং চেষ্টা করব সকল কিছু সহজে আপনাদের বোঝানোর জন্য।

এখন যেহেতু ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা হয়ে গিয়েছে । তাই দেরি না করে ইউটিউব চ্যানেলে কাজ করা শুরু করে দিন এবং ইনকাম করুন। ইউটিউবে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার জন্য অবশ্যই ইউটিউব এর দিকে মনোযোগ সহকারে কাজ করতে হবে । ইউটিউব এ সফলতা পাওয়ার একমাত্র উপায় হল এই মনোযোগ সহকারে আনন্দের সহিত কাজ করা। অর্থাৎ কোনভাবেই হতাশ হওয়া যাবে না। অনেক ইউটিউবার আছে যাদের প্রথম প্রথম ভিউ হয় না। কিন্তু তারা আজকে প্রতিদিন প্রায় 3 থেকে 4 মিলিয়ন ভিউ পাচ্ছে শুধুমাত্র একটি ভিডিও থেকে এবং এর পিছনে হলো তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং আত্মবিশ্বাস। পরিশেষে আমি একটি কথাই বলবো ইউটিউবার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই নিজের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে।

Leave a Comment